ঢাকাবৃহস্পতিবার , ১২ আগস্ট ২০২১
  1. অর্থনীতি
  2. আইন আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. কনভার্টার
  5. কৃষি ও প্রকৃতি
  6. খেলাধুলা
  7. গাইবান্ধা
  8. গাইবান্ধা সদর
  9. গোবিন্দগঞ্জ
  10. চাকুরী
  11. জাতীয়
  12. ধর্ম
  13. পলাশবাড়ী
  14. প্রবাসের খবর
  15. ফিচার
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সংরক্ষণের অভাবে দর্শনীয় স্থানে পরিণত হয়নি ‘বামনডাঙ্গা জমিদার বাড়ি’

Admin
আগস্ট ১২, ২০২১ ১২:০১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

বেঁচে নেই জমিদার। নেই তাঁদের জমিদারি, বাসগৃহ, অতিথিশালা, রাজদরবার আর হাতিশালা। তাঁদের স্থাপনার নেই কোনো চিহ্ন। এরপরেও সবাই জানে এটি জমিদার বাড়ি। বলছিলাম বামনডাঙ্গা জমিদার বাড়ির কথা। সংরক্ষণ আর উদ্যোগের অভাবে জমিদার বাড়ির নানা স্থাপনার কোনো চিহ্নই আর অবশিষ্ট নেই এখানে। তাই নতুন প্রজন্মের কাছে এখন প্রবীণদের গল্পের খোরাকে পরিণত হয়েছে জমিদার বাড়ির ইতিহাস-ঐতিহ্য।

সময়মতো পদক্ষেপ নিলে ঐতিহাসিক দর্শনীয় স্থানে পরিণত হতো এ জায়গাটি। এতে একদিকে যেমন সম্যক ধারণা পেত দর্শনার্থীরা তেমনি অন্যদিকে বিপুল পরিমাণ অর্থ যোগ হতো রাজস্ব আয়ে।

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার সর্বানন্দ ইউনিয়নে ঐতিহাসিক এ জমিদার বাড়ির অবস্থান। যদিও এটি বামনডাঙ্গা জমিদার বাড়ি নামে পরিচিত। বাড়িতে জমিদারের বসবাসের জন্য ছিল বাসগৃহ, অতিথিদের জন্য অতিথিশালা, রাজকার্য পরিচালনার জন্য রাজদরবার, ধর্ম চর্চার জন্য ছিল দুর্গা মন্দির, তিনটি পিরামিড সদৃশ মঠ, খাজনা আদায়ে ট্রেজারি, গো-শালা ও হাতি রাখার জন্য হাতিশালা। আর এসব স্থাপনা তৈরি হয়েছিল ইট, সুরকি ও লোহা দিয়ে। এ জমিদার বাড়িতে দিঘি ছিল তিনটি। একটি দিঘিতে সারা রাত সোনার চালুনি ও আরেকটি দিঘিতে কালো পাথর ভেসে থাকত। বলা হয়, কালো পাথর ভাসাকালে পানির রংও কালো হয়ে থাকত। আর সোনার চালুন ও কালো পাথরের ভয়ে দিঘিতে অনেকে নামতে ভয় পেত।

সরেজমিনে দেখা যায়, বর্তমানে ঐতিহাসিক এ জমিদার বাড়িটির অবকাঠামো, রাজ দরবার, ট্রেজারি, অতিথিশালা, দুর্গা মন্দির, মঠ, গো-শালা, হাতিশালা ও প্রাচীরসহ দৃশ্যমান কোন স্মৃতিচিহ্নই আর অবশিষ্ট নেই। অনেক আগেই বাসগৃহ, অতিথিশালা, রাজদরবার, দুর্গামন্দির, মঠ, ট্রেজারিসহ অন্যান্য নিদর্শনগুলো ধ্বংস হয়ে গেছে। সর্বশেষ ২০১০ সালে হাতিশালাটিও ভেঙে ফেলা হয়। আর এ হাতিশালা ভেঙে ফেলার মধ্য দিয়ে ঐতিহাসিক বামনডাঙ্গা জমিদার বাড়ির শেষ চিহ্নটুকুও নিশ্চিহ্ন হয়ে যায়।

বর্তমানে জমিদার বাড়ির জমিতে সর্বানন্দ ইউনিয়ন ভূমি অফিস, মসজিদ, প্রাথমিক স্কুল, দু’টি আশ্রয়ণ কেন্দ্র ও একটি বাজার রয়েছে। খাসজমির মধ্যে ৪৭ দশমিক ২৪ একর জমি ১৬৮ জনকে বন্দোবস্ত দেওয়া হয়েছে ও ৩৫ শতাংশ জমি এখনো কোন বন্দোবস্ত দেওয়া হয়নি বলে ইউনিয়ন ভূমি অফিস সূত্রে জানা যায়। পুকুর তিনটির মধ্যে একটিতে আশ্রয়ণ কেন্দ্রের লোকজন মাছ চাষ করেন এবং বাকি দুটি সংশ্লিষ্ট ভূমি অফিসের নিয়ন্ত্রণে আছে।

জমিদারদের সঙ্গে মিশতেন এমন শতবর্ষী প্রবীণ ব্যক্তি আবু বকর সিদ্দিক স্মৃতি রোমন্থন করতে গিয়ে কেঁদে কেঁদে বলেন, ‘জমিদার শরৎ রায় চৌধুরী, তাঁর মেয়ে জমিদার সুমতি বালা চৌধুরী (সুনীতি), জমিদার বীপিন রায় চৌধুরী, তাঁর দুই ছেলে জমিদার মনিন্দ্র রায় চৌধুরী ও জমিদার জগৎ রায় চৌধুরী এদের সবারই জমিদারি দেখেছি আমি। তাঁরা হিন্দু হলেও আমাকে খুব স্নেহ করতেন, প্রজাদেরকেও ভালোবাসতেন। জমিদারি চলে যাওয়ার পর জমিদার মনিন্দ্র রায় চৌধুরীসহ অন্যান্যরা এক এক করে কলকাতা চলে যান ও জমিদার জগৎ রায় এখানেই মারা যান। তবে বাড়ি-ঘরগুলো ভেঙে ফেলায় খুব কষ্ট পেয়েছি।’

এ জমিদারি বাড়ির গোড়াপত্তনের ইতিহাস সঠিক জানা না গেলেও জমিদার কৃষ্ণ কান্ত রায় চৌধুরীই যে বামনডাঙ্গার প্রথম জমিদার ছিলেন এবং তিনিই এ জমিদার বাড়ির পত্তন করেছিলেন তা জানা যায় বিভিন্ন সূত্রে। জনশ্রুতি রয়েছে, গৌড় বংশীয় ব্রাহ্মণ কৃষ্ণ কান্ত রায় চৌধুরী সুন্দরগঞ্জের বামনডাঙ্গায় বসতি স্থাপনের পাশাপাশি জমিদারি প্রতিষ্ঠা করেন। সেই সময়ে বামনডাঙ্গা জমিদারের সুনাম ছড়িয়ে পড়ার পাশাপাশি প্রজাদের মনে সুখ ও শান্তি বিরাজমান থাকায় এলাকাটির নামকরণ হয়ে যায় সর্বানন্দ।

বামনডাঙ্গা জমিদার পরিবারের অতীত বংশধরদের সঠিক নাম পরিচয় না জানা গেলেও নবম কিংবা দশম বংশধরের নাম ব্রজেশ্বর রায় চৌধুরী। তিনি একসময় জমিদারি লাভ করেন। তার মৃত্যুর পর একমাত্র ছেলে নবীন চন্দ্র রায় চৌধুরী জমিদারি গ্রহণ করেন। মূলত তাঁর জমিদারি আমলেই বামনডাঙ্গা জমিদারের খ্যাতি চতুর্দিকে ছড়িয়ে পড়ে। নবীন চন্দ্র রায়ের দুই ছেলে শরৎ চন্দ্র রায় চৌধুরী ও বিপীন চন্দ্র রায় চৌধুরী। বাবা নবীন রায় চৌধুরীর মৃত্যুর পর শরৎ রায় চৌধুরী ও বিপীন রায় চৌধুরী বামনডাঙ্গার জমিদারি লাভ করেন। দুই ভাই বামনডাঙ্গার জমিদারিকে দু’ভাগ করে পৃথক পৃথকভাবে জমিদারি পরিচালনা করেন। জমিদার শরৎ চন্দ্র রায় চৌধুরীর মৃত্যুর পর তাঁর একমাত্র মেয়ে সুনীতি বালা দেবী জমিদারি লাভ করেন। জমিদারি লাভের আগেই সুনীতি বালা দেবীর বিয়ে হয়েছিল দিনাজপুর জেলার ভাতুরিয়ার প্রিয়নাথ পাকড়াশীর সঙ্গে। বলা হয়, সুনীতি বালা দেবীর একটি গাভি ছিল। ওই গাভিকে কলাপাতায় লবণ না খাওয়ালে সে দুধও দিত না। হাতিতে চড়ে সুনীতি বালা দেবী শ্বশুর বাড়ি থেকে বাবার বাড়িতে আসার সময় এক শ হাতির বহর থাকত সঙ্গে।

অন্যদিকে, জমিদার বীপিন চন্দ্র রায়ের মৃত্যুর পর তাঁর দুই ছেলে মনিন্দ্র চন্দ্র রায় চৌধুরী ও জগৎ চন্দ্র রায় চৌধুরী বাবা বীপিন চৌধুরীর জমিদারিকে দুই ভাগে ভাগ করে পৃথক পৃথকভাবে জমিদারি পরিচালনা করেন। এর মধ্য দিয়ে বামনডাঙ্গার জমিদার বংশের জমিদারি মূলত তিন ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়ে। তবে, জমিদার মনিন্দ্র চন্দ্র রায় চৌধুরী ও জগৎ রায় চৌধুরী তাঁদের জমিদারি সফলতার সঙ্গে পরিচালনা করতে পারলেও সুনীতি বালা দেবী তাঁর জমিদারি সফলভাবে পরিচালনা করতে পারেননি। ফলে জমিদার সুনীতি বালা দেবী ব্রিটিশ সরকারকে খাজনা প্রদানে ব্যর্থ হন। সে কারণে ১৯৪৬ সালে সুনীতি বালা দেবীর জমিদারি নিলামে ওঠে এবং পুর্ণিয়ার মহারাজা কৃষাণ লাল সিংহ তা ক্রয় করেন।

এদিকে, দুই ভাই মনিন্দ্র চন্দ্র রায় চৌধুরী ও জগৎ রায় চৌধুরী সাফল্যের সঙ্গে জমিদারি চালাতে থাকেন। কিন্তু ভারতবর্ষ ভাগের পর ১৯৫০ সালে পূর্ব বাংলায় (বর্তমান বাংলাদেশ) জমিদারি প্রথা বিলুপ্ত হলে ঐতিহ্যবাহী এ জমিদার বংশের জমিদারির যবনিকাপাত ঘটে। জমিদারি চলে যাওয়ার পরে বড় ভাই জমিদার মনিন্দ্র রায় চৌধুরী ভারতের আসামে চলে যান ও ছোট ভাই জমিদার জগৎচন্দ্র রায় চৌধুরী এ জমিদার বাড়িতেই থেকে যান। এ বাড়িতেই ১৯৬৫ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে তাঁর মৃত্যু হয়। জমিদার জগৎ চন্দ্র রায়ের মৃত্যুর পরে জমিদারের বংশধররা পালাক্রমে ভারতে চলে যান। আর বাজেয়াপ্ত হয়ে যায় তাঁদের সব সম্পদ।

এই সাইটে নিজম্ব নিউজ তৈরির পাশাপাশি বিভিন্ন নিউজ সাইট থেকে খবর সংগ্রহ করে সংশ্লিষ্ট সূত্রসহ প্রকাশ করে থাকি। তাই কোন খবর নিয়ে আপত্তি বা অভিযোগ থাকলে সংশ্লিষ্ট নিউজ সাইটের কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করার অনুরোধ রইলো।বিনা অনুমতিতে এই সাইটের সংবাদ, আলোকচিত্র অডিও ও ভিডিও ব্যবহার করা বেআইনি।