গাইবান্ধাগাইবান্ধা সদর

জলবায়ু ঝুঁকি হ্রাসে বার দফা দাবিতে গাইবান্ধায় মানববন্ধন

যুক্তরাজ্যের গ্লাসগোতে আসন্ন কপ-২৬ জলবায়ু সম্মেলনে কয়লাভিত্তিক জ্বালানি ব্যবহার বন্ধ ও নবায়নযোগ্য জ্বালানি প্রসার ও প্রতিশ্রুত জলবায়ু অর্থায়নে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা সহ বার দফা দাবি উত্থাপন করে মানববন্ধন করেছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক)’র আয়োজনে রোববার (৩১ অক্টোবর) সকাল ১১ টার দিকে গাইবান্ধা নাট্য ও সাংস্কৃতিক সংস্থা (গানাসাস) চত্বরে ঘণ্টাব্যাপী এক মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হয়েছে।

এ মানববন্ধন কর্মসূচিতে বক্তব্য রাখেন- সনাক জেলা সভাপতি অধ্যাপক জহুরুল কাইয়ুম, সনাক সদস্য প্রফেসর এ. এফ.এম তৌহিদুল ইসলাম, জিয়াউল হক কামাল, অ্যাডভোকেট আনিস মোস্তফা তোতন, শিরিন আক্তার, স্বজন সমন্বয়কারী ও ইটিভি জেলা প্রতিনিধি আফরোজা লুনা, সদস্য সাজ্জাদ হোসেন চৌধুরী, নাহিদ হাসান চৌধুরী, ইয়েস দলনেতা হামিম তাহিয়াত তামান্না, সহ-দলনেতা জাহিদ ও নদী, সদস্য সম্পা দেব, সৌরভ প্রামাণিক, মেহেদী হাসান, ইয়েস ফ্রেন্ডস সহ-দলনেতা আল মামুন সরকার প্রমূখ। এসময় টিআইবির অনুপ্রেরণায় গঠিত সনাক, স্বজন, ইয়েস ও ইয়েস ফ্রেন্ডস সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন- যুক্তরাজ্যের গ্লাসগোতে ৩১ অক্টোবর থেকে শুরু হতে যাওয়া কপ-২৬ জলবায়ু সম্মেলনকে প্যারিস চুক্তি পরবর্তী সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ জলবায়ু সম্মেলন হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে। প্রাক শিল্পায়ন সময় থেকে বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধি ১.২ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখার জন্য ১৯৬ টি দেশ প্যারিস চুক্তিতে সম্মত হয় ছয় বছর আগে। কিন্তু চুক্তি বাস্তবায়নের পথ রেখা চূড়ান্ত করতে পারেনি দেশগুলো।

প্যারিস চুক্তি অনুসারে ক্ষতিগ্রস্থ দেশগুলোকে ক্ষতিপূরণ হিসেবে প্রতিশ্রুত জলবায়ু তহবিল প্রদানে চাপ সৃষ্টি করতে এবারের সম্মেলনের প্রতি আহবান জানিয়ে বক্তারা কয়লাভিত্তিক জ্বালানি ব্যবহার বন্ধ করে নবায়নযোগ্য জ্বালানির প্রসার এবং জলবায়ু তহবিল ব্যবহারে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহি নিশ্চিত করা এবং ঋণ দিয়ে নয়, ক্ষয়ক্ষতি মোকাবেলায় সরাসরি অনুদান দেওয়ার দাবি করেন তারা।

Back to top button